বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ৫টি বিল্ডিং যা আকাশ ছোঁয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছে !!

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ৫টি বিল্ডিং যা আকাশ ছোঁয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছে


পৃথিবীতে জনসংখ্যা বাড়ছে, বাড়ছে শহরায়ন এবং বাড়তি মানুষের আবাসনের প্রয়োজনে তৈরি হচ্ছে উঁচু উঁচু সব দালান। কিছু কিছু বিল্ডিং এতটাই উঁচু যে মনে হবে তা যেন আকাশ ছোঁয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছে। বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ৫টি বিল্ডিং নিয়ে থাকছে আমাদের এবারের আয়োজন।



বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ৫টি বিল্ডিং নিয়ে দেখুন বাংলা তথ্যচিত্র-



বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ৫টি বিল্ডিং যা আকাশ ছোঁয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছে !!

৫. লোটে ওয়ার্ল্ড টাওয়ার, দক্ষিণ কোরিয়া

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ৫টি বিল্ডিং যা আকাশ ছোঁয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছে
লোটে ওয়ার্ল্ড টাওয়ার। Photo: Public Domain

২০১৬ সালের মার্চে নির্মাণ শেষ হওয়া দক্ষিণ কোরিয়ার লোটে ওয়ার্ল্ড টাওয়ার বিশ্বের ৫ম এবং দেশটির সবেচেয়ে উঁচু বিল্ডিং। এর উচ্চতা ১৮১৯ ফুট। ২০১১ সালের মার্চে নির্মাণ শুরু হওয়া ১২৩ তলা বিশিষ্ট এই বিল্ডিংটি তৈরির প্রস্তুতি নিতেই সময় লেগেছিলো ১৩ বছর। ভবনটিতে রয়েছে অফিস, হোটেল, দোকান এবং স্টুডিও অ্যাপার্টমেন্ট। ১৬৩৩ ফুট উঁচুতে রয়েছে একটি অবজারভেশন ডেক যেখান থেকে সিউলের অসাধারণ দৃশ্য দেখতে পারেন দর্শণার্থীরা। বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুততম এলিভেটর ব্যবহার করা হয়েছে এই বিল্ডিংয়ে। এই ভবন রিখটার স্কেলে ৯ মাত্রার ভূমিকম্প হজম করে নিতে পারবে বলে জানিয়েছেন এর নির্মাতারা।

৪. পিং অ্যান ফাইন্যান্স সেন্টার, চীন

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ৫টি বিল্ডিং যা আকাশ ছোঁয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছে
পিং অ্যান ফাইন্যান্স সেন্টার, চীন। Photo: Public Domain

বিশ্বের চতুর্থ উচ্চতম এ ভবনটির নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে ২০১৭ সালে। ২০০৯ সালের নভেম্বরের নির্মান শুরু হয় এই বিল্ডিংয়ের। চীনের গুয়াংডং প্রদেশের শেনজেনে নির্মিত এই স্কাইস্ক্র্যাপারটির উচ্চতা ১৯৬৫ ফুট। ৪ লাখ ৬২ হাজার স্কয়ার মিটার জায়গা জুড়ে তৈরি ১১৫ তলাবিশিষ্ট এই বিল্ডিংয়ে রয়েছে কনফারেন্স সেন্টার, হোটেল এবং শপিং মল। ১৮০৪ ফুট উঁচুতে তৈরি অবজারভেশন ডেকে প্রতিদিন ৯ হাজার দর্শণার্থীর সমাগম ঘটে। আর যাতায়াতের জন্য ব্যবহার করা হয়েছে ৩৩টি ডাবল ডেকার এলিভেটর।

৩. আবরাজ আল বাইত ক্লক টাওয়ার, সৌদি আরব

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ৫টি বিল্ডিং যা আকাশ ছোঁয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছে
আবরাজ আল বাইত ক্লক টাওয়ার, সৌদি আরব। Photo: Public Domain

সৌদি আরবের মক্কায় ২০১২ সালে নির্মাণ করা হয় বিশ্বের তৃতীয় উচ্চতম এই ভবন যা আবরাজ আল বাইত বা মক্কা রয়্যাল ক্লক টাওয়ার নামে পরিচিত। আরো কিছু ছোটে-বড় বিল্ডিং বেষ্টিত এই ভবনের উচ্চতা ১৯৭২ ফুট। এই বিল্ডিয়ের বিশেষ বৈশিষ্ট হচ্ছে, এখানেই সবেচেয়ে উঁচুতে স্থাপন করা হয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ঘড়িটি। ১২০ তলাবিশিষ্ট এই ভবনে রয়েছে হোটেল, কনফারেন্স সেন্টার, চাঁদ পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র, ইসলামি জাদুঘর এবং মসজিদ যেখানে একসাথে ১০ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন।

২. শাংহাই টাওয়ার, চীন

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ৫টি বিল্ডিং যা আকাশ ছোঁয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছে
শাংহাই টাওয়ার, চীন। Photo: Public Domain

চীন শাংহাইয়ের এই স্কাইস্ক্রাপারটির সৌন্দ্যর্যই শুধু আপনাকে মুগ্ধ করবে না, আরও একটা বিষয় আপনাকে চমৎকৃত করবে আর তা হলো এর নির্মাণশৈলী। এটি ভূমি থেকে চূড়া অব্দি ১২০ ডিগ্রি ঘুরে গেছে আর পুরো ভবনটি যেন মুড়ে দেয়া হয়েছে কাঁচ দিয়ে। ২০০৬ সালে শুরু হয়ে বিল্ডিংটির নির্মাণ শেষ হয় ২০১৪ সালে। এর বিল্ডিংয়ের উচ্চতা ২০৭৩ ফুট। ১২৮ তলা এই ভবনটি ব্যবহার করা হচ্ছে অফিস এবং হোটেল হিসেবে। রয়েছে আকর্ষণীয় অবজারভেশন ডেক। গ্রিন আর্কিটেকচার প্রযুক্তিতে তৈরি এই বিল্ডিংয়ে বিদ্যুতের জন্য উইন্ড টারবাইন এবং বৃষ্টির পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা রয়েছে।

১. বুর্জ খালিফা, সংযুক্ত আরব আমিরাত

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ৫টি বিল্ডিং যা আকাশ ছোঁয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছে
বুর্জ খালিফা, সংযুক্ত আরব আমিরাত। Photo: Public Domain

এখন পর্যন্ত বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু বিল্ডিং সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে অবস্থিত এই ভবনটি যা বুর্জ খালিফা নামে পরিচিত। ২০০৪ সালে নির্মাণ শুরু হয়ে শেষ হয় ২০০৮ সালে। ৩ লাখ ৩৪ হাজার স্কয়ার মিটার জায়গা জুড়ে তৈরি ১৬৩ তলার এই ভবনটির উচ্চতা ২৭১৭ ফুট। এক সাথে ৩০ হাজার মানুষের আবাসন, ৯টি হোটেল এবং শপিং মল রয়েছে এই বিল্ডিংয়ে। চলাচলের জন্য রয়েছে ৫৭টি এলিভেটর ও ৮টি এস্কেলেটর। বিল্ডিংয়ের সামনে তৈরি করা হয়েছে বিশাল কৃত্রিম লেক।


মন্তব্যসমূহ

Trending Posts

মরুভূমিতে খুঁজে পাওয়া সবচেয়ে রহস্যময় ৫টি আবিষ্কার যার ব্যাখ্যা এখনো খুঁজে চলেছেন বিজ্ঞানীরা !!

সবচেয়ে রহস্যময় ৫টি প্রত্নতাত্ত্বিক আবিষ্কার যার ব্যাখ্যা নেই কারো কাছে !!

ডাইনোসর নিয়ে সবচেয়ে রহস্যময় ৫টি অজানা তথ্য !!

সবচেয়ে রহস্যময় ও ভুতুড়ে ৫টি ছবি যার ব্যাখ্যা নেই বিজ্ঞানীদের কাছে !!