ফল কামড়ে খাওয়ার চেয়ে 'জুস' বানিয়ে খেতে আমাদের কারোরই হয়তো আপত্তি থাকেবে না, এমনকি অনেকে হয়তো ফলের 'জুস' খাওয়াটাকেই এগিয়ে রাখবেন। কিন্তু জানেন কি, বেশিরভাগ ফলের জুস উপকারের বদলে আপনার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াতে পারে? এমনকি সেটা যদি কমলার জুসও হয়।

ফল খান, ভুলেও পান করবেন না!


'হার্ভার্ড স্কুল অব পাবলিক হেলথ' এর সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা দিনে এক গ্লাসের মতো ফলের জুস পান করেন, তাদের "টাইপ টু" ডায়াবেটিস হওয়ার প্রবণতা ২১ শতাংশের বেশি বেড়ে যায়।


অন্যদিকে যারা সপ্তাহে অন্তত দু'বার কোনো ফল, বিশেষ করে আঙুর বা আপেল চিবিয়ে খান, তাদের "টাইপ টু" ডায়াবেটিস হওয়ার আশংকা ২৩ শতাংশ কমে যায়।


শুধু তাই নয়, জুস করলে ফলের অনেক উপকারী উপাদান ও এন্টিঅক্সিডেন্ট ধ্বংস হয়ে যায়, এমনকি প্রাকৃতিক ফাইবারের পুরোটাই নষ্ট হয়ে যায়।


আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের প্রকাশিত জার্নাল থেকে জানা যায়, যারা তাদের প্রতিদিনের ক্যালরির ১০-২৫ শতাংশ চিনি থেকে নেন, তাদের হৃদরোগের ঝুঁকি ৩০ শতাংশ বেড়ে যায়। ফলের জুসে ফাইবার না থাকায়, জুস পান করা প্রকারন্তরে চিনি গ্রহণ করাই হয়। যা পরোক্ষভাবে বাড়িয়ে দিচ্ছে আপনার হৃদরোগের ঝুঁকি।


ফল জুস করলে এর ফাইটোকেমিক্যাল উপাদান নষ্ট হয়ে যায়। যা ক্যান্সার, উচ্চ রক্তচাপসহ নানা ধরনের রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।


এখন আপনিই সিদ্ধান্ত নিন, ফল আস্ত খাবেন, না জুস করে খাবেন।



নুসরাত শাহপার তুবা